১৪৪ ধারাকে তুড়ি মেরে উড়িয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছে তৃণমূলের ৩ প্রতিনিধি দল

Read Time:2 Minute

24 Hrs Tv:নিজস্ব প্রতিনিধি : শুভেন্দু, সুকান্তের পর শুক্রবার আজ বিজেপির ৬ সদস্যের ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং টিমকে সন্দেশখালি ঢুকতে বাঁধা দেয় পুলিশ। নির্দিষ্ট কিছু অঞ্চলে ১৪৪ ধারা লাঘু আছে তাই প্রতিনিধি দলকে ঢুকতে দেয়নি পুলিশ। অন্যদিকে, উল্টো ছবি ধরা পরল সন্দেশখালিতে। তিন তৃণমূল নেতা বৃহস্পতিবার থেকেই স্থানীয় বাসিন্দাদের বাড়ি বাড়ি ঘুরছে।

জানা যাচ্ছে, উত্তম সর্দার, শিবু হাজরাদের কাছ থেকে যারা টাকা পান তাঁদের বাড়ি গিয়ে গিয়ে তথ্য অনুসন্ধানের কাজ করছেন শাসক দলের নেতারা। প্রশ্ন উঠছে, বিরোধীদের ক্ষেত্রে ১৪৪ ধারা মোতাবেক সন্দেশখালিতে প্রবেশে নিষেধাঞ্জা থাকলেও একই আইন শাসক তৃণমূলের ক্ষেত্রে কেন কার্যকর নয়? তাহলে কি শাসক দল হওয়ার সুবাদে তারা আইনের উর্দ্ধে। অবাধে ঘুরে বেরাচ্ছেন তিন তৃণমূল নেতা।

সন্দেশখালি ২ নম্বর ব্লকের তৃণমূল পরিচালিত পঞ্চায়েত সমিতির সহ সভাপতি মহেশ্বর সর্দার, সন্দেশখালি গ্রাম পঞ্চায়েতের উপপ্রধান গণেশ দাস এবং সন্দেশখালি পঞ্চায়েত সমিতির এক মহিলা সদস্যা। দাবি, টাকা বকেয়া থাকলে, উত্তম সর্দারের পরিবার তা মিটিয়ে দেবে জানিয়েছেন সন্দেশখালির বিধায়ক। শেখ শাহজাহানের ঘনিষ্ঠ উত্তম সর্দার, শিবু হাজরার বিরুদ্ধে ক্ষোভে ফুঁসছে সন্দেশখালি। শিবু হাজরা ও উত্তম সর্দারের বিরুদ্ধে অভিযোগ, ভেড়ির জন্য জমি দিলেও, মেলেনি টাকা।

এছাড়াও মহিলাদের ওপর নির্যাতনের অভিযোগও উঠে এসেছে উত্তমের বিরুদ্ধে। ৬ বছরের জন্য বহিস্কার করা হয়েছে তাঁকে। কার্যত ভয়ঙ্কর সব অভিযোগ নিয়ে উত্তমের বিরুদ্ধে একের পর এক মহিলা মুখ খুলছেন। ধৃত সাসপেন্ডেড তৃণমূল নেতা উত্তমের বিরুদ্ধে জোর করে আটকে রাখা, শ্লীলতাহানি, গুরুতর আঘাত, মহিলাকে কটূক্তি, হুমকি এবং অপরাধমূলক ষড়যন্ত্রের ধারায় মামলা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *