হাইকোর্ট থেকে মেডিকেলে ভর্তির সব মামলা সুপ্রিম কোর্টে

Read Time:4 Minute

24 Hrs Tv:নিজস্ব প্রতিনিধি :মেডিকেলে ভর্তি সংক্রান্ত সমস্ত মামলা আপাতত কলকাতা হাইকোর্টের হাত থেকে সরিয়ে দেওয়া হল। শীর্ষ আদালত জানিয়েছে, তারাই মামলাগুলি শুনবে। আগামী তিন সপ্তাহ পরে আবার মেডিকেল মামলার শুনানি হবে সুপ্রিম কোর্টে।

দেশের শীর্ষ নির্দেশে জানিয়েছে, মেডিকেলে মামলার সব পক্ষকে লিখিত আকারে হলফনামা জমা দিতে হবে। প্রধান বিচারপতি জানান, কলকাতা হাইকোর্টে ডিভিশন বেঞ্চ এবং সিঙ্গল বেঞ্চ নিয়ে যা হচ্ছে, সুপ্রিম কোর্ট তা ভাল চোখে দেখছে না। এ বিষয়ে আর কোনও মন্তব্য তাঁরা করবেন না। আদালতের পর্যবেক্ষণ, এতে হাইকোর্টের গরিমা ক্ষুণ্ণ হতে পারে। কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে সোমবার সুপ্রিম কোর্টে বলতে চেয়েছিলেন সলিসিটর জেনারেল। প্রধান বিচারপতি তাঁকে লিখিত আকারে তাঁদের বক্তব্য জানাতে বলেছেন। সুপ্রিম কোর্টের বিশেষ বেঞ্চে রয়েছেন প্রধান বিচারপতি ডিওয়াই চন্দ্রচূড়, বিচারপতি সঞ্জীব খন্না, বিচারপতি বিআর গাভাই, বিচারপতি সূর্যকান্ত, বিচারপতি অনিরুদ্ধ বসু।

শীর্ষ আদালতে হাইকোর্টের সিঙ্গল বেঞ্চের বিরুদ্ধে সওয়াল করেন রাজ্যের আইনজীবী কপিল সিব্বল। সিঙ্গল বেঞ্চ থেকে মামলা সরানোর আবেদন জানান তিনি। বলেন, ‘সিঙ্গল বেঞ্চ থেকে মেডিক্যালে ভর্তি মামলা সরানো হোক। না হলে আবার একই ঘটনা ঘটবে।’ সিঙ্গল বেঞ্চের বিচারপতি সভায় যাচ্ছেন বলেও অভিযোগ করেন তিনি। যদিও বিচারপতির নাম উল্লেখ করা হয়নি। রাজ্যের তরফে মেডিকেল মামলা প্রসঙ্গে জানানো হয়, মেডিকেলে ভর্তির ১৪টি ভুয়ো শংসাপত্র পাওয়া গিয়েছে। দায়ের হয়েছে মোট চারটি এফআইআর। সব পক্ষের বক্তব্য শুনে মেডিকেল মামলার ভার নিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। কলকাতা হাইকোর্ট থেকে মেডিকেলের সব মামলা স্থানান্তর করা হয়েছে।মেডিকেলে ভর্তি মামলায় সিবিআই তদন্তের নির্দেশ দিয়েছিলেন বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায়। বিচারপতি সেনের ডিভিশন বেঞ্চ তা খারিজ করে দেয়। এরপরেই ওই বিচারপতির বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ তোলেন বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায়। ‘ত্রুটি’ উল্লেখ করে ডিভিশন বেঞ্চের নির্দেশই তিনি খারিজ করে দেন এবং সিবিআইকে তদন্ত চালিয়ে যেতে বলেন।

বেনজির এই সংঘাতের আবহে স্বতঃপ্রণোদিত পদক্ষেপ করেছিল সুপ্রিম কোর্ট। শনিবার ছুটির দিনে বিশেষ বেঞ্চ গঠন করে এই মামলা শোনে শীর্ষ আদালত। ওই দিন মেডিকেল মামলায় হাইকোর্টের যাবতীয় বিচারপ্রক্রিয়া স্থগিত করে দেওয়া হয়েছিল। স্থগিতাদেশ দেওয়া হয় সিবিআই তদন্তেও। রাজ্য, মামলাকারী, এমনকি সিবিআইকেও নোটিস দেওয়া হয়। তারপর সোমবার মেডিকেল মামলার শুনানির ভার হাতে নিল সুপ্রিম কোর্ট।কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায় মেডিকেলে ভর্তি মামলায় যে নির্দেশ দিয়েছেন, তার বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে মামলা করেছে রাজ্য। শনিবারই মামলা করা হয়েছে। সেই সংক্রান্ত শুনানিও হতে পারে তিন সপ্তাহ পরে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *