‘খলিস্তানি’ বিতর্কে শুভেন্দুর বিরুদ্ধে মামলা, মমতাকে চিঠি শিখদের

Read Time:4 Minute

24 Hrs Tv:নিজস্ব প্রতিনিধি: রাজ্য রাজনীতি ‘খলিস্তানি’ বিতর্কে উত্তাল। এই ইস্যুতে এবার বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারীর বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের ভবানীপুর থানায়। পাশাপাশি শুক্রবার চলতি বিতর্কে শিখ সম্প্রদায়ের তরফ থেকে চিঠি পাঠানো হয়েছে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে। চিঠিতে মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করার আরজিও জানানো হয়েছে।

ভবানীপুর থানায় শুভেন্দুর বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছেন গুরমীত সিং। ঠিকানা পদ্মপুকুর রোডের ইয়ুথ খালসা ক্লাব। অভিযোগপত্রে বলা হয়েছে, ওই ঘটনায় শুধু শিখ পুলিশকর্তাকে ধর্মীয় অবমাননাই করা হয়নি, পাশাপাশি বিভিন্ন ধর্মের মধ্যে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্ট করা ও হিংসা ছড়ানোরও চেষ্টা করা হয়েছে। অন্যদিকে, কলকাতায় রাজ্য বিজেপির সদর দফতরের সামনে অবস্থানরত শিখ সম্প্রদায়ের বিক্ষোভকারীদের পক্ষেও একটি চিঠি পাঠানো হয়েছে মুখ্যমন্ত্রীর কাছে। চিঠিতে বলা হয়েছে, তাঁদের উদ্দেশে এমন আক্রমণের ঘটনায় অভিযুক্তের শাস্তি না হওয়া পর্যন্ত তাঁরা শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদ চালিয়ে যাবেন।

উল্লেখ্য, গত মঙ্গলবার শুভেন্দু অধিকারী নেতৃত্বে উত্তপ্ত সন্দেশখালি পরিদর্শনে যায় বিজেপি বিধায়কদের একটি প্রতিনিধি দল। ধামাখালির ফেরিঘাটে ১৪৪ ধারা জারি থাকায় বিজেপি প্রতিনিধিদলকে আটকায় পুলিশ। পুলিশ দলে ছিলেন ইনটেলিজেন্স ব্রাঞ্চের স্পেশাল সুপার, আইপিএস অফিসার যশপ্রীত সিং। শিখ সম্প্রদায়ের ওই আইপিএসের মাথায় স্বভাবতই পাগড়ি ছিল। অভিযোগ, তা দেখেই বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী নাকি ‘ওটা খলিস্তানি’ বলে কটাক্ষ করেন। এতেই উত্তেজিত হয়ে পড়েন ওই পুলিশ অফিসার। পাল্টা প্রশ্ন করেন, ‘আমার মাথায় পাগড়ি দেখে খলিস্তানি বলছেন? এ কেমন কথা’? উভয়ের তর্কবিতর্কের জেরে ধামাখালি ফেরিঘাট চত্বর উত্তপ্ত হয়ে ওঠে।

এদিকে এই খলিস্তানি বিতর্ক ‘বুমেরাং’ হতে পারে, এটা বুঝতে পেরে বিজেপি সন্দেশখালি ইস্যুকে ফের একবার বড়সড় আকারে সামনে আনতে চাইছে। অস্বস্তি ঢাকতে সুকান্ত মজুমদার, লকেট চট্টোপাধায়কে দিয়ে সন্দেশখালিতে আন্দোলনের ঝাঁঝ বাড়াতে চাইছে গেরুয়া শিবির। বিজেপি চাইছে খলিস্তানি ইস্যু থেকে বেরিয়ে আসতে। কিন্তু শুভেন্দুর মন্তব্যে যারপরনাই ক্ষুব্ধ দেশের শিখ সম্প্রদায়ের মানুষ। খলিস্তানি বিতর্ক এখন শুধু এরাজ্যের বেড়াজালে আটকে নেই। ছড়িয়েছে গোটা দেশে। লোকসভা নির্বাচন হতে আর বেশি দেরি নেই। এমন সময়ে এই বিতর্ক এবং শিখ সম্প্রদায়ের মধ্যে বিজেপিকে নিয়ে বিরূপ প্রতিক্রিয়া হওয়াটা স্বাভাবিক। ইভিএমে যাতে এই বিতর্ক কোনও প্রভাব না ফেলতে পারে বিজেপির বিপক্ষে তাই ‘ড্র্যামেজ কন্ট্রোলে’ নেমেছে পদ্ম শিবির।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *