রাম দিনে বিজেপি-আরএসএসকে তোপ রাহুল গান্ধীর

Read Time:3 Minute

24 Hrs Tv: নিজস্ব প্রতিনিধি : আজ সোমবার, অযোধ্যার সরর্যুর পাড়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি গর্ভগৃহে প্রবেশ করে রামলালার প্রাণপ্রতিষ্ঠা করছেন। আর এদিনই অসমের রাজগড়ের সভা থেকে বিজেপি ও আরএসএস কংগ্রেস সাংসদ রাহুল গান্ধীর তোপ,’সব ধর্ম, জাত ও ভাষাভাষীর মানুষকে একে অপরের বিরুদ্ধে উস্কে দিয়ে সমাজে ঘৃণা ছড়িয়ে দিচ্ছে বিজেপি ও আরএসএস। যাতে মানুষের নজর ঘুরিয়ে দেওয়া যায়।’ অসমের মুখ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্বশর্মার বিরুদ্ধে দুর্নীতি নিয়ে সরব হওয়ার জন্যই গত রবিবার পরিকল্পিত হামলা চলে রাহুলের কর্মসূচির ওপর। বিজেপি কর্মীরা রাহুলকে দেখে ‘গো ব্যাক’ স্লোগান তোলে।

রাজগড়ের সভা থেকে বেকারত্ব ইস্যু থেকে শুরু করে চাষিদের শস্যের সঠিক দাম না পাওয়ার মতো বিভিন্ন বিষয় তুলে ধরেন রাহুল। তিনি বলেন, ‘আমরা ‘ভারত জোড়ো যাত্রায়’ লক্ষ লক্ষ মানুষের সঙ্গে দেখা করেছি। যুবকরা বেকারত্ব সমস্যা তুলে ধরেছেন, কৃষকরা বলেছেন তাঁরা ফসলের ন্যায্য মূল্য পান না। তাই আপনাদের কথা আবার একবার শুনতে আমরা ‘ভারত জোড়ো ন্যায় যাত্রা’ শুরু করেছি। এখানে ছাত্র-ছাত্রীরা লক্ষ লক্ষ টাকা খরচ করে স্কুল-কলেজ যাচ্ছেন। কিন্তু, পরে তাঁরা জানতে পারছেন, অসমে চাকরি পাওয়া যাবে না। কৃষকরা ফসলের সঠিক দাম পান না। নোটবন্দি ও জিএসটি-র জেরে ছোট দোকানদাররা শেষ হয়ে গিয়েছেন। গোটা দেশের সরকারটা চলছে কিছু নির্দিষ্ট শিল্পপতির জন্য।’

অসমের মুখ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্বশর্মাকে একহাত নিয়ে রাহুল বলেন, ‘ভারতের সবথেকে দুর্নীতিগ্রস্ত মুখ্যমন্ত্রী কে ? অসম তথা গোটা দেশের মানুষ উত্তরটা জানেন, হিমন্ত বিশ্বশর্মা। যাঁরা আমাদের হুমকি দিচ্ছেন তাঁদের জেনে রাখা দরকার, এটা রাহুল গান্ধীর যাত্রা নয়। এটা অসমের মানুষের যাত্রা। রাহুল গান্ধী ও অসমের মানুষ মুখ্যমন্ত্রীকে ভয় পান না। ওরা যা চায় তা করতে পারে।’ অরুণাচল প্রদেশে এক রাত কাটানোর পর রবিবার অসমে প্রবেশ করে যাত্রা।

বৃহস্পতিবার থেকে শনিবার দুপুর পর্যন্ত চলে অসমের প্রথম দফার যাত্রা। পরে তা চলে যায় অরুণাচল প্রদেশে। যাত্রা চলাকালীন মহাত্মা গান্ধীর মূর্তিতে ফুল নিবেদন করে শ্রদ্ধা জানান কংগ্রেস সাংসদ। রবিবার অসমের বিশ্বনাথ জেলায় রাহুলের ভারত জোড়ো ন্যায় যাত্রাকে কিছুক্ষণের জন্য থামিয়ে রাখে পুলিশ। যদিও পুলিশ ও কংগ্রেস কর্মীদের মধ্যে আলোচনার পর, যাত্রা ফের শুরু হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *