‘দাঙ্গা বাঁধিয়ে দিয়ে ভুল করবেন না’: মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

Read Time:3 Minute

24 Hrs Tv:নিজস্ব প্রতিনিধি: গত ৫ জানুয়ারি সন্দেশখালির তৃণমূল নেতা শেখ শাহজাহানের বাড়ি আকুঞ্জি পাড়ায় ইডি অভিযানে আসে। রেশন বণ্টন দুর্নীতি মামলার তদন্তে এসে কেন্দ্রীয় এজেন্সির আধিকারিকদের ওপর হামলা হয়। অভিযোগ ওঠে এই হামলা শাহজাহানের নির্দেশে করেছে তারই বাহিনী। এরপর থেকে একটু একটু করে তেঁতে উঠেছে গোটা সন্দেশখালি। ৫৫ দিন কেটে গেলেও ওই ঘটনার পর সন্দেশখালির ‘বাঘ’ শেখ শাহজাহান বেপাত্তা।

জোর করে জমি দখল, চাষের জমিতে নোনা জল ঢোকানো, কাজ করিয়ে ন্যায্য পারিশ্রমিক না দেওয়া সহ মহিলাদের রাত-বিরেতে দলীয় অফিসে ডেকে নিয়ে যাওয়া, কূ-মন্তব্য, কূ-প্রস্তাব, অত্যাচার, হুমকি, নির্যাতন সহ ভুরি ভুরি অভিযোগ উঠেছে শেখ শাহজাহান ও তাঁর ভাই শেখ সিরাজউদ্দিন এবং তাঁর বাহিনীর বিরুদ্ধে। শাহজানের দুই শাগরেদ উত্তম সর্দার এবং শিবু হাজরা এখন গারদে। এই অবস্থায় বাঁকুড়া থেকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সন্দেশখালি প্রসঙ্গে মুখ খুলেছেন।

মমতা বুধবার বলেন, ‘সিঙ্গুর হল সিঙ্গুর, নন্দীগ্রাম হল নন্দীগ্রাম, এক এক জায়গার এক একটা আলাদা আলাদা চেহারা মনে রাখবেন, একটার সঙ্গে আর একটার তুলনা করে দাঙ্গা বাঁধিয়ে দিয়ে ভুল করবেন না। কোথাও রক্ত ঝরুক আমি চাই না’। সন্দেশখালির কিছু নির্দিষ্ট জায়গাতে এখনও ১৪৪ ধারা জারি আছে। অশান্তি এড়ানর জন্যে এবং স্থিতাবস্থা বজায়ের লক্ষ্যে রাজ্য প্রশাসন ১৪৪ ধারা জারি রেখেছে ঠিকই। কিন্তু আইনের জালে জরিয়ে বেশ বেকায়দায় পড়েছে প্রশাসন। কেননা এদিন বেশ কয়েকজন মহিলা একসাথে শেখ শাহজাহানের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করতে বের হয়। তখন পুলিশ ১৪৪ ধারার কারণ দেখিয়ে তাঁদের বাঁধা দেয় এবং বলে এক জক করে পুলিশের অস্থায়ী অভিযোগ গ্রহন কেন্দ্রে যেতে হবে। এতে ওই মহিলাদের সঙ্গে পুলিশের সাময়িক বচসা বাঁধে। শেষমেশ পুলিশ ওই বচসাস্থল থেকেই পুলিশ অভিযোগ গ্রহন করে। এহেন সন্দেশখালি পরিস্থিতি ১৪৪ ধারা, দেখা যাচ্ছে প্রশাসনের কাছে বুমেরাং হয়ে দাঁড়াচ্ছে এবং তা ক্ষোভের আগুনে ফুঁসে থাকা স্থানীয়দের অভাব-অভিযোগ থেকে তৈরি হওয়া ক্ষোভকে আরও বাড়িয়ে দিতে পারে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *