আদালতের নির্দেশের পরেও নরেন্দ্রপুর কাণ্ডে অভিযুক্তরা অধরা

Read Time:2 Minute

24 Hrs Tv:নিজস্ব প্রতিনিধি : নরেন্দ্রপুরের স্কুলে দুস্কৃতি তাণ্ডবের ঘটনায় এফআএআরে নাম থাকা অভিযুক্তদের হাইকোর্ট সোমবারই বেঁধে দিয়েছিল সময়সীমা। রাতের মধ্যেই গ্রেফতারের নির্দেশ দিয়েছিল। রাত পেরিয়ে সকাল, এখনও অধরা অভিযুক্তরা।

এঘটনার প্রভাব পড়েছে শিক্ষাঙ্গনের পঠন-পাঠনে। প্রায় ৭০০ পড়ুয়া রয়েছে নরেন্দ্রপুরের বলরামপুর মন্মথনাথ বিদ্যামন্দিরে। কিন্তু মঙ্গলবার দেখা গেল এক্কেবারে ভিন্ন ছবি। অধিকাংশ শ্রেণীকক্ষ ফাঁকা। পড়ুয়ারা আসেনি স্কুলে। একটা আতঙ্কের পরিবেশ তৈরি হয়েছে শিক্ষাঙ্গন জুড়ে। এর জেরে অভিভাবকরা পড়ুয়াদের স্কুলে পাঠায়নি। যেভাবে স্কুলে ক্লাস চলাকালিন বহিরাগত দুস্কৃতিরা স্কুলে ঢুকে দৌরাত্ম করেছে বিষয়টিকে মেনে নিতে পারছে না পড়ুয়া থেকে অভিভাবকরা।

রাতের মধ্যেই নরেন্দ্রপুরের স্কুলে তাণ্ডবের ঘটনায় এফআইআরে নাম থাকা অভিযুক্তদের গ্রেফতারের নির্দেশ দিয়েছিল কলকাতা হাইকোর্ট। কিন্তু নরেন্দ্রপুর থানার পুলিশ মামলায় নাম না থাকা দুজনকে গ্রেফতার করেছে। এফআএআরে নাম রয়েছে বলরামপুর মন্মথনাথ বিদ্যামন্দিরের প্রধান শিক্ষক সৈয়দ ইমতিয়াজ আহমেদ। বনহুগলি ২ নম্বর গ্রাম পঞ্চায়েতের দুই তৃণমূল সদস্য অলক নাড়ু ও আকবর আলি খান, তৃণমূল কর্মী প্রবীর সর্দার-সহ আরও ১৫ জনের। এখনও নরেন্দ্রপুর থানার পুলিশ আদালতের নির্দেশ কার্যকর করেনি। হাইকোর্টের নির্দেশ, আপাতত স্কুলে ঢুকতে পারবেন না প্রধান শিক্ষক। বাকি শিক্ষকদের নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করতে হবে। কিন্তু আদালতের নির্দেশের পরেও, কেউ গ্রেফতার না হওয়ায় আতঙ্কিত শিক্ষক-শিক্ষিকারা।

অন্যদিকে, আদালত থেকে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে গ্রেফতারির নির্দেশ ‘ওয়ারেন্ট’ জারি হওয়ার পর থেকে অভিযুক্তরা বেপয়াত্তা। অভিযুক্তদের পরিবারের লোকেদের দাবি, তারা বাড়ির লোকের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারছে না। ঘটনা ঘিরে এলাকায় চাপা উত্তেজনা রয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *