সন্দেশখালিতে নারী নির্যাতনের আবহে ৮ মার্চ বারাসতে মোদীর সভা

Read Time:3 Minute

24 Hrs Tv:নিজস্ব প্রতিনিধি: আন্তর্জাতিক নারী দিবসের দিনে ৮ মার্চ বারাসতে সভা করবেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। সন্দেশখালি ইস্যুতে তপ্ত বঙ্গ রাজনীতি। এই আবহে বারাসতে মোদীর সভা ঘিরে রাজনৈতিক হাওয়া আরও গরম হতে শুরু করেছে। ওই দিনই প্রধানমন্ত্রীর মঞ্চে হাজির করানোর সম্ভাবনা সন্দেশখালির নির্যাতিতাদের। আগে বারাসতে এই সভা হওয়ার কথা ছিল ৬ মার্চ। শনিবার রাজ্য বিজেপির সভাপতি সুকান্ত মজুমদার ও বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারীকে নিয়ে দিল্লিতে বৈঠকে বসেছিল বিজেপির শীর্ষনেতারা।

৮ মার্চ বারাসতে সভা করবেন মোদী। সেদিন মহাশিবরাত্রি। তাই বিজেপি নেতৃত্ব সভার নাম দিয়েছে ‘নারী শক্তি বন্দনা কর্মসূচি’। সন্দেশখালির পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখেই আন্তর্জাতিক নারী দিবসের দিনে বারাসতে প্রধানমন্ত্রীর সভা করার সিদ্ধান্ত নেয় কেন্দ্রীয় বিজেপি। কারণ, সন্দেশখালিতে শাসকদলের নেতাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ, সেখানকার মা-বোনেদের রাতের অন্ধকারে পার্টি অফিসে ডেকে তাঁদের ওপর নির্যাতন চালিয়েছেন। এমন ঘটনা চলেছে বছরের পর বছর।

রেশন দুর্নীতি মামলায় ৫ জানুয়ারি ইডি আধিকারিকরা সন্দেশখালিতে শাহজাহান শেখের বাড়িতে হানা দিতে গিয়ে আক্রান্ত হন। এরপর থেকেই ৫২ দিন কেটে গেলেও বেপাত্তা হয়ে যান সন্দেশখালির দাপুটে তৃণমূল নেতা শাহজাহান। ইতিমএধ্যে শাহজাহানের দুই শাগরেদ উত্তম সর্দার, শিবু হাজরা পুলিশের হাতে ধরা পড়েছে। কিন্তু গোটা ঘটনার মাস্টারমাইন্ড শাহজাহান শেখ এবং তাঁর ভাই শেখ সিরাজউদ্দিনের গ্রেফতারির দাবিতে সোচ্চার স্থানীয় মহিলারা।

গ্রেফতারির দাবিতে বিক্ষোভ বেড়েই চলেছে মহিলাদের। এই ক্ষোভের আঁচ প্রধানমন্ত্রীর সভায় তুলে ধরতে চাইছে বিজেপি। তাই বারাসতের সভায় সন্দেশখালির নির্যাতিত মহিলাদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে পারেন মোদী। সরব হতে পারেন মহিলাদের ওপর হওয়া অত্যাচারের বিরুদ্ধে। আর আন্তর্জাতিক নারী দিবসের দিন প্রধানমন্ত্রীর মুখে রাজ্যের শাসকদলের এমন সমালোচনা উঠে আসলে, স্বভাবতই লোকসভা নির্বাচনের আগে তৃণমূলের কাছে তা অস্বস্তির কারণ হতে পারে বলেই মনে করা হচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *