‘মানুষকে রামের বিরুদ্ধে মিছিল করার জন্য হুমকি দেওয়া হচ্ছে’: লকেট

Read Time:5 Minute

24 Hrs Tv: নিজস্ব প্রতিনিধি : সোমবার অযোধ্যায় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি রামমন্দিরের গর্ভগৃহে প্রবেশ করে রামলালার প্রাণপ্রতিষ্ঠা করেন। আর এদিনই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় হিংসা, ঘৃণার বিরুদ্ধে কলকাতায় ‘সংহতি যাত্রা’ কর্মসূচিতে পা মেলান। মমতার এই কর্মসূচিকে কটাক্ষ করেছেন বিজেপি সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায়। রামের নাম সবাইকেই করতে হবে। রাজনীতির তুষ্টিকরণ করে বাংলার দশ কোটি মানুষকে আলাদা করার চেষ্টা করছে মুখ্যমন্ত্রী। তৃণমূলের সংহতি যাত্রা প্রসঙ্গে এদিন সিঙ্গুর স্টেশন সংলগ্ন রাম মন্দিরে পূজো দিয়ে মন্তব্য করলেন সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায়। সিঙ্গুর রেলস্টেশন সংলগ্ন এলাকায় শিব মন্দিরে উপস্থিত হয়ে রামপুজো করেন বিজেপি সাংসদ। মন্ত্র উচ্চারণ করে ফুল,বেলপাতা দিয়ে অঞ্জলি দিলেন সাংসদ।

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে একহাত নিয়ে হুগলির বিজেপি সাংসদের দাবি, ‘উনি শুধুমাত্র ভোট ব্যাংকের পলিটিক্সের জন্য রামের মধ্যে ধর্ম ঢোকাচ্ছে আর পশ্চিমবঙ্গটাকে দেশ থেকে আলাদা করতে চাইছেন। ১৪০ কোটি মানুষ আজ রাম নাম করছেন, আর আজকে মুখ্যমন্ত্রী রামের বিরুদ্ধে গিয়ে মিছিল করছেন। ওনার কোনওদিন ভালো হতে পারে না।’

Glimpses of Pran Pratishtha ceremony of Shree Ram Janmaboomi Temple in Ayodhya, Uttar Pradesh on January 22, 2024. PM presents on the occasion.

সিঙ্গুর রেলস্টেশন সংলগ্ন এলাকায় শিব মন্দিরে গিয়ে লকেট শিবের মাথায় দুধ ও জল ঢালেন লকেট। বিজেপি সাংসদ বলেন, ৫০০ বছর লড়াইয়ের পর রাম তার নতুন গৃহে আজ প্রবেশ করবেন। রাম সর্বদাই সর্বত্র বিরাজমান ছিলেন। আজ নতুন গৃহে প্রবেশ করছেন এটা আমাদের কাছে খুবই গর্বের। রাজা রামের যে বিচার ধারা ছিল, তিনি যেভাবে রাজ্য পরিচালনা করেছিলেন, সেই চিন্তা ভাবনা আমাদের মত যারা রাজনীতিবিদ আছেন তাদের অনুসরণ করা উচিত।

তিনি আরও বলেন, ‘আমরা রামকে ছাড়া কিছু করতে পারি না। যেভাবে রামের নামের বিরুদ্ধে পশ্চিমবঙ্গের সংহতি মিছিল হচ্ছে, মানুষকে যেভাবে রামের বিরুদ্ধে মিছিল করার জন্য হুমকি দেওয়া হচ্ছে এদের কখনো ভালো হতে পারে না। আজকে রাম একটাই, রামের পরে সব। রামকে ধর্মের সঙ্গে তুলনা করলে, ধর্ম কর্ত্যেবের সঙ্গে তুলনা করা হয়। আগে রাম তারপর সব ধর্ম।’

এরই সঙ্গে গৌতম দেবের রাম ভজন নিয়ে লকেট বলেন, যে কোন দলের লোক হোক না কেন সবার ভেতরেই রাম নাম আছে এবং সমস্ত মানুষের বাড়িতে আজ রাম ভজনা হচ্ছে। শবযাত্রাতেও রাম নাম করতে হবে। যে যতই তুষ্টিকরণের রাজনীতি করুক না কেন। যতই সে সংহতির মিছিল করুক, সারা জায়গায় রামের বিরুদ্ধে মিছিল করুক, তাকে ও শেষ যাত্রায় চারজনের কাঁধে চেপে রাম নাম নিয়ে মেতে হবে। এটাই আমাদের গন্ত্যবস্থল।

প্রসঙ্গত, বঙ্গে মমতা ‘সংহতি যাত্রা’র কর্মসূচি নিয়েছেন। আর দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে ‘ভারত জোড়ো ন্যায় যাত্রা’ কর্মসূচিতে কংগ্রেস সাংসদ রাহুল গান্ধী। বিজেপি বিরোধী দুই মুখ নিজেদের মতন করে বিজেপি-আরএসএস-মোদি বিরোধী কর্মসূচিতে নেমেছে। ইন্ডিয়া জোট নিয়ে কয়েকপ্রস্থ আলোচনা হয়েছে কংগ্রেস, তৃণমূল সহ বিজেপি বিরোধী দলগুলো নিয়ে। কিন্তু আসন রফা এখনও হয়নি। রাজ্যে রাজ্যে রাজনৈতিক বাধ্যবাধকতায় গেঁড়োয় জোটের ভবিষ্যৎ ঘিরে ধোঁয়াশা তৈরি হয়েছে। এখন দেখার বিজেপি-আরএসএস-মোদি বিরোধী মিসাইল গুলো এক জায়গায় আসতে পারে কিনা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *