শাহজাহান ‘অত্যন্ত প্রভাবশালী’ আদালতে দাবি রাজ্য পুলিশের

Read Time:3 Minute

24 Hrs Tv:নিজস্ব প্রতিনিধি: গত বুধবার রাতে মিনাখাঁ থেকে শাহজাহান শেখকে গ্রেফতার করার পর বৃহস্পতিবার সকালে তাঁকে বসিরহাট মহকুমা আদালতে নিয়ে আসে পুলিশ। আদালতে তাঁকে ১৪ দিন নিজেদের হেফাজতে রাখার আবেদন করে পুলিশ। যদিও আদালত শাহজাহানকে ১০ দিনের পুলিশি হেফাজতের নির্দেশ দেয়। এদিন পুলিশ আদালতে জমা দেওয়া নথিতে শাহজাহানকে ‘অত্যন্ত প্রভাবশালী’ বলে উল্লেখ করেছে।

আদালতে সরকারি আইনজীবীর বক্তব্য ছিল, শাহজাহানকে জামিন দিলে সন্দেশখালি এবং ন্যাজাট থানা এলাকার আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি আরও খারাপ হতে পারে। নথিতে দেখা যাচ্ছে, পুলিশ একাধিক জামিন অযোগ্য ধারায় শাহজাহানের বিরুদ্ধে মামলা রুজু করেছে। আদালতে জমা দেওয়া পুলিশের নথিতে শাহজাহানকে এলাকার ‘অত্যন্ত প্রভাবশালী’ ব্যক্তি বলে চিহ্নিত করা হয়েছে। সেখানে পুলিশ বলেছে যে, শাহজাহানকে জামিন দেওয়া হলে সাক্ষীদের ভয় পাওয়াতে পারেন, আবার নিজেও গা ঢাকা দিতে পারেন। শুধু ইডি আধিকারিকদের কাজে বাধা দেওয়াই নয়, কর্তব্যরত ইডি আধিকারিকদের যে ভাবে নৃশংস ভাবে নিগ্রহ এবং লুটপাট করা হয়েছে, তারও ‘মাস্টারমাইন্ড’ হিসাবে শাহজাহানের নাম জানিয়েছে পুলিশ।

গত ৫ জানুয়ারি সন্দেশখালির সরবেড়িয়া গ্রামে শাহজাহানের বাড়িতে তল্লাশি চালাতে গিয়ে শাহজাহানের অনুগামীদের রোষের মুখে পড়েন ইডি আধিকারিকরা। ওইদিন শাহজাহানের বাড়ির সামনে ইডি আধিকারিকদের মারধর, গাড়ি ভাঙচুর এবং লুটপাটে যুক্ত ছিল, তাদের চিহ্নিত করতে শাহজাহানই একমাত্র পথ বলেও নথিতে দাবি করেছে পুলিশ। লুট হওয়া মালপত্রের কিছুই এখনও উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি বলে জানিয়েছে পুলিশ। তারপরেই দাবি করা হয়েছে, শাহজাহান পুলিশকে আশ্বস্ত করেছেন যে, তিনি লুটের মাল উদ্ধার করতে পুলিশকে সহযোগিতা করবেন।

পাশাপাশি আদালতে জানিয়েছে, শাহজাহানকে এখনই জামিনে মুক্তি দিলে সরাসরি তার প্রভাব পড়তে পারে সন্দেশখালি এবং ন্যাজাট থানা এলাকার আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতিতে। তাঁর জামিনে মুক্তি এলাকায় হিংসার বাতাবরণ তৈরি করতে পারে বলেও আশঙ্কা প্রকাশ করা হয়েছে পুলিশের নথিতে। পুলিশের নথিতে জানানো হয়েছে, গত ৫ জানুয়ারি ইডি আধিকারিকদের ওপর হামলা, গাড়ি ভাঙচুর এবং লুটপাটের ঘটনাতেই ২৯ ফেব্রুয়ারি গ্রেফতার করা হয় শাহজাহানকে। তাঁকে গ্রেফতার করেন ন্যাজাট থানার সাব-ইন্সপেক্টর প্রতাপ সরকার। গ্রেফতারির পর প্রতাপ তাঁকে জিঞ্জাসবাদও করেন। পুলিশের নথিতে দাবি করা হয়েছে যে, জিঞ্জাসাবাদে প্রতাপের সামনে দোষ কবুল করেন শাহজাহান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *