রাজ্যজুড়ে তৃণমূলের ‘জনগর্জন’ কর্মসূচি

Read Time:3 Minute

24 Hrs Tv:নিজস্ব প্রতিনিধি: ১০ তারিখ কলকাতায় তৃণমূলের ব্রিগেড। ব্রিগেডে ‘জনগর্জন’ সভা তৃণমূলের।এরপরেই জনগর্জন সভা রাজ্যজুড়ে, এমনটাই জানা গিয়েছে তৃণমূল সূত্রে। জানা যাচ্ছে, রাজ্যে ৪২ লোকসভা কেন্দ্রে হবে সভা। অর্থাৎ রাজ্যের প্রতিটি লোকসভা আসন ধরে ধরে এই সভা আয়জিত হতে চলেছে।

তৃণমূল সুত্রে খবর, রাজ্যজুড়ে হবে এই জনগর্জন সভার। প্রতি কেন্দ্রেই সভার প্রধান বক্তা দলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। ১৪ মার্চ শুরু হবে এই কর্মসূচি। ব্রিগেডে মমতার বার্তা মানুষের আরও কাছে পৌছতে এই কর্মসূচি এমনটাই খবর। লোকসভা নির্বাচন নিয়ে প্রতিটি দলই নিজেদের মতো করে প্রস্তুতি শুরু করে দিয়েছে। শাসক থেকে বিরোধী কোনও পক্ষই, বিপক্ষকে একইঞ্চিও জমি ছাড়তে নারাজ। টানা প্রায় তিন বছর ধরে বিজেপি তথা নরেন্দ্র মোদি সরকারের বিরুদ্ধে রাজ্যের প্রতি বঞ্চনার অভিযোগ তুলে চলেছে তৃণমূল কংগ্রেস। অন্যদিকে, তৃণমূলের বিরুদ্ধে দুর্নীতির – সহ বিভিন্ন ইস্যুতে সোচ্চার বিজেপি ও অন্যান্য বিরোধীরা।

এই আবহে ‘বাংলার প্রতি লাগাতার কেন্দ্রীয় বঞ্চনা, ১০০ দিনের কাজ, আবাস যোজনা, রাস্তা ও একাধিক জনকল্যাণমূলক প্রকল্পের টাকা অন্যায়ভাবে বন্ধ করে দেওয়ার প্রতিবাদে এবং বহিরাগত অত্যাচারীদের বিসর্জনের অঙ্গীকার নিতে ব্রিগেড চলো’র ডাক দিয়েছে তৃণমূল। এই কর্মসূচির নাম দেওয়া হয়েছে ‘জনগর্জন’ সভা। সভা থেকে নির্বাচনের আগে দলকে বার্তা দিতে চলেছেন তৃণমূল সুপ্রিমো তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। উল্টো পিঠে তৃণমূল যখন জনগর্জন সভার প্রস্তুতি নিচ্ছে, ঠিক সেই সময় রাজ্যে সফরে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। ইতিমধ্যেই আরামবাগ ও কৃষ্ণনগরে সভা করেছেন প্রধানমন্ত্রী। সেই সভা থেকে রাজ্যের শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেক তীব্র আক্রমণ করেছেন মোদি। দুর্নীতি, নারী নির্যাতন, সহ বিভিন্ন ইস্যুতে তৃণমূলকে নিশানা করেছেন তিনি।

এরই পাল্টা জবাব দিতে তৃণমূল ব্রিগেডে সভার রেশকে ধরে রাখতে চাইছে। এর জন্যেই রাজ্যজুড়ে বিজেপি তথা মোদি বিরোধী হাওয়াকে ধোঁয়া দিতে প্রতি লোকসভা আসনে জনগর্জন সভা কর্মসুচি নিয়েছে। ১০০ দিনের কাজের সঙ্গে জড়িতদের ‘মন কি বাত’ কবে শুনবেন এবং সিবিআই’র এফআইআরে নাম থাকা শুভেন্দু অধিকারীকে বিজেপি থেকে কবে বহিস্কার করবে এই দুই প্রশ্নে পদ্ম শিবিরকে বিদ্ধ করার পরিকল্পনা তৃণমূলের। এই পরিকল্পনাকেই বাস্তবের জমিতে চাষ করতেই ৪২ আসন জুড়ে জনগর্জন কর্মসূচি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *