সন্দেশখালিতে সংবাদ সংগ্রহ করতে গিয়ে গ্রেফতার সাংবাদিক

Read Time:4 Minute

24hrs Tv ওয়েব ডেস্ক : সৌরভ দত্ত:খবর সংগ্রহ করতে গিয়ে সন্দেশখালিতে গ্রেফতার হলেন এক সাংবাদিক। ওই সাংবাদিক এক সর্বভারতীয় টিভি চ্যানেলে কর্মরত। সম্প্রতি, রাজ্যের শাসক দল তৃণমূলের স্থানীয় নেতৃত্বের বিরুদ্ধে ক্ষোভে উত্তাল হয়ে উঠেছে সন্দেশখালি এলাকা। প্রতিবাদে সরব হয়েছেন সেখানকার বাসিন্দারা। সেই খবর সংগ্রহ করতেই সন্দেশখালি গিয়েছিলেন ওই সাংবাদিক। লাইভও করছিলেন। আর, সেই সময়ই তাঁকে সরাসরি লাইভের মধ্যে থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে।
সাংবিধানিক বিশেষজ্ঞরাও মেনে নেন যে, সংবাদমাধ্যম হল গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভ। খবর সংগ্রহের জন্য তাঁদের বিভিন্ন জায়গায় প্রবেশের অধিকারেও স্বীকৃতি দিয়েছে আদালত। কিন্তু, তারপরও দেশের বিভিন্ন প্রান্তে সংবাদমাধ্যমের ওপর আক্রমণের ঘটনা কমছে না। সাংবাদিকদের হেনস্তার ঘটনা প্রায় প্রতিদিনই চলছে। সেই তালিকায় এবার নতুন সংযোজন ওই সর্বভারতীয় টিভি চ্যানেলের সাংবাদিকের গ্রেফতারি।
এরাজ্যে দীর্ঘদিন ধরেই সংবাদমাধ্যমের কর্মীদের ওপর হামলার ঘটনা ঘটে চলেছে। যদিও সেনিয়ে তেমন একটা প্রতিবাদ কোনও মহলেই দেখা যায় না। সাংবাদিকদের কাজ সত্য ঘটনা পরিবেশন করা। সেই প্রয়োজনে তাঁদের বিভিন্ন এলাকায় গিয়ে সংবাদ সংগ্রহ করতে হয়। যার জন্য নানা পেশাদারি ঝক্কির মধ্যেও পড়তে হয় সাংবাদিকদের। সন্দেশখালির বিভিন্ন অংশে ১৪৪ ধারা জারি হয়েছে। তার মধ্যেই ১৪৪ ধারার বিরুদ্ধে অন্তর্বর্তী স্থগিতাদেশ দিয়েছে কলকাতা হাইকোর্ট। এই পরিস্থিতিতে ওই সাংবাদিকের গ্রেফতারি সন্দেশখালি-কাণ্ডে নতুন মাত্রা যোগ করল।
পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, এক মহিলার অভিযোগের ভিত্তিতে ওই সাংবাদিককে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাঁর বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানির ধারা দায়ের করা হয়েছে। এক পুলিশ আধিকারিক এই ব্যাপারে এক্সপ্রেসকে বলেছেন, ‘ওই সাংবাদিককে ৩৪১ এবং ৩৫৪ ধারায় গ্রেফতার করা হয়েছে।’

পুলিশ সূত্রে খবর, ধৃত সাংবাদিক একজন স্থানীয় টিএমসি কর্মীর স্ত্রীর বাড়িতে ঢুকে পড়েছিলেন। ওই মহিলা তাতে অস্বস্তি বোধ করেন। তিনি ওই সাংবাদিককে চলে যেতে বললে হাতাহাতির পরিস্থিতি তৈরি হয়। এরপর একদল মহিলা ওই সাংবাদিককে ঘিরে ফেলেন। তারপর ওই সাংবাদিককে গ্রেফতার করা হয়।
এই গ্রেফতারির কড়া নিন্দা করেছে বিজেপি। দলের তরফে একে গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভের ওপর সরাসরি আক্রমণ বলে অভিযোগ করা হয়েছে। বিজেপির রাজ্য সভাপতি সুকান্ত মজুমদার বলেন, ‘আজ, পশ্চিমবঙ্গ পুলিশ সন্দেশখালি থেকে এক সাংবাদিককে গ্রেফতার করেছে। কারণ, তিনি স্থানীয়দের ওপর যে অত্যাচার হচ্ছে, তার রিপোর্ট করেছেন। এটি একটি ব্যাপক, অমানবিক এবং সরাসরি গণতন্ত্রের ওপর আক্রমণ। গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভের ওপর আঘাত।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *