‘বহিরাগত’ ইস্যুতে ব্যাট চালিয়ে খেললেন ইউসুফ পাঠান

Read Time:2 Minute

24 Hrs Tv:নিজস্ব প্রতিনিধি: বহরমপুরের মাটিতে জীবনের দ্বিতীয় ইনিংস শুরু করে দিলেন তৃণমূল প্রার্থী তথা জোড়া বিশ্বকাপজয়ী দলের সদস্য ইউসুফ পাঠান। বৃহস্পতিবারই তিনি প্রথম বার পা রাখেন বহরমপুর কেন্দ্রে। সেখানে তাঁকে বরণ করে নেন ভরতপুরের তৃণমূল বিধায়ক হুমায়ুন কবীর। যে হুমায়ুন একদা ইউসুফের প্রার্থী পদের বিরোধিতা করে নির্দল হিসাবে লড়ার হুমকি দিয়েছিলেন।

মারকুটে ব্যাটার হিসাবে পরিচিত পাঠান জীবনের দ্বিতীয় ইনিংসেও ‘চালিয়ে’ই খেলতে চান। প্রথম বার বহরমপুরে পৌঁছে সোজা ব্যাটে খেলে সেই বার্তা দিলেন তিনি। নাম ঘোষণার পর থেকেই পাঠানকে বহিরাগত বলে আক্রমণ শুরু করেছিল বিরোধীরা। বহরমপুরের বিদায়ী সাংসদ অধীর ছিলেন সেই সম্মিলিত আক্রমণের পুরোভাগে। এত দিন এ নিয়ে কোনও কথাই বলেননি পাঠান। বহরমপুরের ‘ঘূর্ণি পিচে’ ব্যাট করতে নেমে সপাটে সেই প্রশ্নের জবাব দিলেন। বললেন, “আমাকে বহিরাগত বলা হচ্ছে। নরেন্দ্র মোদীও তো গুজরাতের বাসিন্দা হয়ে বারাণসী থেকে ভোটে লড়েন। কিন্তু ওঁকে কি বহিরাগত বলা হয়? আমিও গুজরাত থেকে বাংলায় এসেছি ভোটে লড়তে, তা হলে আমি কেন বহিরাগত হতে যাব! আমি বাংলারই ছেলে। এখানে থাকতেই এসেছি।” একথা শুনে চেয়ার থেকে প্রায় লাফিয়ে উঠে হাততালি দিলেন দু’দিন আগে ইউসুফের প্রার্থী পদের ঘোর বিরোধিতা করা বিধায়ক হুমায়ুন।

এদিন মঞ্চে প্রচারের আলো পুরোটাই ছিল পাঠানকে ঘিরে। জোড়া বিশ্বকাপজয়ী দলের অন্যতম সদস্যকে দেখতে ভিড় হয়েছিল চোখে পড়ার মতো। জেলা তৃণমূলের তরফ থেকে অবশ্য কার্যত ‘হুইপ’ জারি করা হয়েছিল দলীয় নেতা-কর্মীদের উদ্দেশে। বস্তুত, ইউসুফকে নিয়ে বহরমপুরবাসীর মধ্যে কতটা উন্মাদনা তৈরি হয় তা মাপতে তৈরি ছিল বিরোধীরাও।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *