CAA-NRC আতঙ্কে আত্মহত্যা তরুণের, তৃণমূলের দাবি ঘিরে চাঞ্চল্য

Read Time:3 Minute

24 Hrs Tv:নিজস্ব প্রতিনিধি: কলকাতার নেতাজি নগরে CAA-NRC আতঙ্কে আত্মহত্যা বছর ৩১-য়ের এক তরুণের। অন্তত তৃণমূলের তরফে এমনটাই অভিযোগ। যদিও এই অভিযোগ মানতে নারাজ বিজেপি। গেরুয়া শিবিরের পাল্টা যুক্তি, মুখ্যমন্ত্রী এই ইস্যুতে আতঙ্ক ছড়াচ্ছেন।

CAA আতঙ্ক থেকে বারবার ‘উদ্বেগ’ হত ওই তরুণের। এর পরেই আত্মহত্যার পথ বেছে নেন ওই তরুণ। সোনারপুর গ্রামীন হাসপাতালে নিয়ে গেলে তাঁকে মৃত বলে ঘোষণা করে চিকিৎসক। বৃহস্পতিবার এনিয়ে AITC একটি ছবি ও ভিডিও পোস্ট করেছে এক্স হ্যান্ডেলে।

AITC-র এক্স হ্যান্ডেলে এনিয়ে পোস্ট করা হয়েছে। দেখা যাচ্ছে অরূপ চক্রবর্তীর অফিসে এসেছেন এক দম্পতি। তাঁরা জানাচ্ছেন, CAA কার্যকর হওয়ার পর থেকেই ভয় পাচ্ছে ওই যুবক। বারে বারে দেশ ছাড়া হওয়ার আশঙ্কা প্রকাশ করছিলেন। এর থেকেই বেশ কয়েকবার ওই তরুণ প্যানিক অ্যাটাকে আক্রান্ত হন, এমনটাই দাবি তৃণমূল। এর জেরেই আত্মহত্যার পথ বেছে নেনে তরুণ।

এই ইস্যুকে হাতিয়ার করে সোচ্চার হয়েছে তৃণমূল। খোদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। এই মৃত্যুর জন্য কেন্দ্রের মোদি সরকার ও বিজেপিকে দুষলেন তিনি। তৃণমূল সূত্রে খবর, গোটা ঘটনার তদন্তের জন্যে দলীয় স্তরে ৫ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি ইতিমধ্যেই গঠন করা হয়েছে। নাদিমুল হোক, শশী পাঞ্জা,অরূপ চক্রবর্তী, কুণাল ঘোষ, সায়নী ঘোষ এই কমিটিতে রয়েছেন। কমিটির সদস্যরা মৃতের বাড়িতে গিয়ে ঘটনা খতিয়ে দেখবে।

প্রসঙ্গত, লোকসভা নির্বাচনের নির্ঘন্ট ঘোষণার আগে ১১ মার্চ কেন্দ্রের পক্ষ থেকে সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন কার্যকর করার বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়।এর পর থেকে তৃণমূল নেতৃত্ব এই আইন বাতিলের দাবিতে জোরালো সওয়াল করছেন। বিক্ষোভ-আন্দোলন করছেন মতুয়াদের একাংশও। নাগরিকত্ব দেওয়ার প্রশ্নে একদিকে যেমন বর্ষীয়ান বিজেপি নেতা তথাগত রায় ‘যৌনাঙ্গ পরীক্ষার’ দাবি তুলেছেন। অন্যদিকে ,CAA বাতিলের দাবিতে ২০০ টি পিআইএল দায়ের হয়েছে সুপ্রিম কোর্টে। মামলায় কেন্দ্রের জবাব চেয়েছে হলফনামা আকারে শীর্ষ আদালত।

আর কেন্দ্রীয়মন্ত্রী শান্তনু ঠাকুর সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন নিয়ে জানিয়েছেন, “সংসদের উভয় কক্ষে বিল পাশ হওয়ার পরে রাষ্ট্রপতি যদি গেজেট নোটিফিকেশন করে দেন, তা হলে কোনও সরকারের সেই আইন বাতিল করার ক্ষমতা নেই।” সব মিলিয়ে লোকসভা নির্বাচনের আগে CAA-NRC দিল্লির মসনদ দখলে ‘X’ ফ্যাক্টর হয়ে উঠেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *