শাস্ত্রীয় সংগীতে ইন্দ্রপতন

Read Time:3 Minute

24 Hrs Tv ওয়েব ডেস্ক : ঋতুপর্ণা পাত্র : শাস্ত্রীয় সংগীতে ইন্দ্রপতন। মাত্র ৫৫ বছরেই থেমে গেল তাঁর কণ্ঠস্বর। প্রায়াত উস্তাদ রশিদ খানের শেষ শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করা হয়ে রবীন্দ্র সদনে। গান স্যালুট দিয়ে তাকে শেষ সম্মান জ্ঞাপন করা হয়ে। সেখানে উপস্থিত ছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আবেগে ভেসে পড়েন তার স্ত্রী পুত্র কন্যা সহ আপনজনেরা। ক্ষুদ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও আবেগপ্রবণ হয়ে পড়ে। রবীন্দ্র সদনে নিয়ম -আচার পালনের পর নিয়ে যাওয়া হয় টালিগঞ্জ কবরস্থানে। সেখানেই সমাহিত করা হয় শিল্পীর নশ্বর দেহ।

একমাসের বেশি সময় ধরেই হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন রশিদ খান। মঙ্গলবার সঙ্গীতশিল্পীর অবস্থার অবনতি হওয়ার কারণে তাঁকে ভেন্টিলেশনে রাখা হয়েছিল। বিগত কয়েকমাস ধরেই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন শাস্ত্রীয় সঙ্গীত শিল্পী রশিদ খান। জানা গিয়েছিল, অতীতে তাঁর প্রস্টেটে ক্যানসার হয়েছিল। সেখান থেকে ধীরে ধীরে তিনি সুস্থ হয়ে উঠছিলেন। তার মধ্যেই তাঁর মস্তিষ্কে একাধিক বার স্ট্রোক হয়। এর পরই তাঁকে হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। কিন্তু শেষরক্ষা হল না। চিরতরে হারিয়ে গেলেন শিল্পী রশিদ খান।

উত্তরপ্রদেশের বদায়ুঁতে জন্মগ্রহণ করেন উস্তাদ রাশিদ খান । তিনি তার মামা ওস্তাদ নিসার হোসেন খানের (১৯০৯-১৯৯৩) কাছ থেকে প্রাথমিক প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন। তিনি ওস্তাদ গোলাম মুস্তফা খানের ভাগ্নে ছিলেন।

কিংবদন্তী শিল্পীর মৃত্যুতে শোকপ্রকাশ করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। মঙ্গলবার রাতে নিজের অফিসিয়াল এক্স হ্যান্ডেলে ভারতের পিএম লিখলেন, ‘ভারতীয় শাস্ত্রীয় সঙ্গীত জগতের কিংবদন্তি ব্যক্তিত্ব ওস্তাদ রশিদ খান জি-র মৃত্যুতে শোকাহত। সঙ্গীতের প্রতি তাঁর অতুলনীয় প্রতিভা এবং নিবেদন আমাদের সাংস্কৃতিক জগতকে সমৃদ্ধ করেছে এবং একাঝধিক প্রজন্মকে অনুপ্রাণিত করেছে। তাঁর চলে যাওয়া এমন এক শূন্যতা তৈরি করল, যা পূরণ করা কঠিন হবে। তাঁর পরিবার, শিষ্য এবং অগণিত ভক্তদের প্রতি আমার আন্তরিক সমবেদনা।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *